অস্ট্রেলিয়াকে টানা তিন ম্যাচ হারিয়ে ঐতিহাসিক সিরিজ জয় করলো বাংলাদেশ

খেলাধুলা

প্রথমবারের মতো অস্ট্রেলিয়াকে টানা তিন ম্যাচ হারিয়ে ঐতিহাসিক সিরিজ জয় করলো বাংলাদেশ। ১২৭ রানের মামুলি স্কোর নিয়েও লড়াই করেছে বাংলাদেশ। লড়াই করেই পাঁচ ম্যাচ সিরিজের দুইটি হাতে রেখেই ক্যাঙ্গারু বধ করলো টাইগাররা।

শুক্রবার মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস জিতে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে ৯ উইকেটে ১২৭ রান করে বাংলাদেশ।

সিরিজ বাঁচাতে জয়ের কোন বিকল্প ছিলো না অস্ট্রেলিয়ার সামনে। এমন ম্যাচে অস্ট্রেলিয়াকে ১১৭ রানেই আটকে দেয় বাংলাদেশ।

১২৮ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৪ উইকেট হারিয়ে ১১৭ রান তোলে অজিরা। যার ফলে ১০ রানের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে টাইগাররা। ঐতিহাসিক এই জয়ে আনন্দে ভাসছে বাংলাদেশ।

এদিন বৃষ্টির কারণে দেড় ঘণ্টার বেশি সময় পরে শুরু হওয়া ম্যাচে টস জিতে ব্যাট নেয় বাংলাদেশ। তবে নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারানোর কারণে খুব বড় সংগ্রহ করতে পারেননি স্বাগতিক বাংলাদেশ। ৯ উইকেট হারিয়ে ১২৭ রান করে বাংলাদেশ। সিরিজ বাঁচাতে ওয়েড-মার্শদের দরকার ছিলো ১২৮ রান।

আগের দুই ম্যাচে মিচেল মার্শ একাই লড়েছিলেন। তবে ৪৫ রানের বেশি করতে পারেননি। দুই ম্যাচেই আউট হয়েছেন একই অঙ্কে (৪৫)। এবারও অস্ট্রেলিয়ার ত্রাতা মার্শই।

ওয়ডের আউটের পর দ্বিতীয় ওভারে ক্রিজে আসেন তিনি; এরপর খেলতে থাকেন দারুণ খেলা। ৪৫ বলে তুলে নিলেন হাফসেঞ্চুরি।

এটি তার ক্যারিয়ারের চতুর্থ ফিফটি। এরপর মার্শকে আর বেশি এগোতে দেননি শরিফুল। মাত্র ১ রান যোগ করেই ফেরান সাজঘরে। শরিফুলের শট লেন্থের বল লং অফে হাওয়ায় ভাসান মার্শ, অন্যদিকে ক্যাচ ধরতে ভুল করেননি নাঈম। ৪৭ বলে ৫১ রান করেন মার্শ।

জীবন পাওয়া ম্যাকডার্মটকে বোল্ড করে ফেরান সাকিব। ম্যাকডার্মটের ব্যাট থেকে আসে ৩৫ রান। পরের ওভারের প্রথম বলেই আঘাত হানেন শরিফুল।

মিডঅনে ক্যাচ দিতে বাধ্য করেন হ্যানরিকসকে। ৩ বলে ২ রান করেন হ্যানরিকস। অস্ট্রেলিয়ার জোড়া উইকেট পড়ে যাওয়ায় বিপদে পড়ে যায় ক্যাঙ্গারুরা।

সাকিব আল হাসানের পর অস্ট্রেলিয়া শিবিরে শরিফুলের জোড়া আঘাত। তার শিকার হয়ে একের পর এক সাজঘরে ফেরেন ময়েজেস হেনরিকস ও মিচেল মার্শ। হেনরিকস ২ রানে আউট হলেও ৪৭ বলে ৫১ রান করে ফেরেন মিচেল মার্শ।

জয়ের জন্য শেষ ১২ বলে অস্ট্রেলিয়ার প্রয়োজন ছিল ২৩ রান। ১৯তম ওভারে দুর্দান্ত বোলিং করেন মোস্তাফিজ। তিনি সেই ওভারে দেন মাত্র ১ রান। তার সেই ওভারেই ম্যাচ জিতে যায় বাংলাদেশ। বাকি ছিল শুধু আনুষ্ঠানিকতা।

শেষ ওভারে অসিদের দরকার ছিল ২২ রান। মেহেদি হাসানকে এক ছক্কা মেরে ১১ রান আদায় করে নিলেও ১০ রানে হেরে যায় অস্ট্রেলিয়া।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *