আমার নেতা সুমন ভূঁইয়ার দেওয়া শিক্ষা অনুসরন করেই যুব সমাজের সেবা করে যাবো- সুমন মীর

কোন কিছুর বিনিময়ে নয়।আমার নেতা, আশুলিয়া থানা যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ও আশুলিয়া থানা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক কমিটির অন্যতম সদস্য সুমন আহমেদ ভুঁইয়ার দেওয়া রাজনৈতিক শিক্ষা অনুসরন করে ও বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বুকে ধরে এলাকার যুব সমাজের সেবা করে যাবো ইনশাআল্লাহ, আমার কোন কিছুর প্রতি লোভ নেই আমি টাকার পাহার গড়তে চাইনা আমি সৎ পথে ও আল্লাহর রাস্তায় থেকে মানুষের সেবা করতে চাই বলেও জানান তিনি। তরুণ এই যুব নেতা আরো বলেন শুধু নিজের কাজ আর রাজনৈতিক ভাবে জীবন যাপন করলেই হবেনা পাশাপাশি পরকালের জন্য কিছু করতে হবে।

কারণ আমারা দুনিয়ায়াতে যাই করি না কেন, সব কিছু হিসাব দিতে হবে উপরওয়ালার কাছে।তাই আসুন আমরা দুনিয়াদারী কাজ কর্মের সাথে সাথে আল্লাহর কাজ করি ও পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়ি।

এতক্ষন যার কথা বলছিলাম। তিনি সাভার উপজেলার আশুলিয়া জামগড়া এলাকার সুমন মীর পেশায় একজন দক্ষ ব্যাবসায়ী। এবং সৎ ও ত্যাগী একজন যুবনেতা। তিনি ছোট বড় থেকে শুরু করে এলাকার সকল বয়সী মানুষের হৃদয়ে স্থান করে নিয়েছেন। বিশেষ করে যুব সমাজের কাছে তিনি যেন ভালেবাসার আর এক পৃথিবী। তাঁর দলীয় কোন পদপদবী নেই।

তবুও বর্তমান স্বক্রীয় দল আওয়ামী লীগের নৌকা প্রেমী একজন মানুষ। বঙ্গবন্ধুর আদর্শে গড়া এই যুবক কোথাও কোন দলীয় অনুষ্ঠান হলে মহুর্তেই শত শত রাজনীতি প্রেমী মানুষ নিয়ে মিছিল আর জয় বাংলার স্লোগানে উৎসব মুখোর পরিবেশ তৈরি করে ফেলেন। কিছুটা হ্যামিলনের বাঁশি ওয়ালার মতই যেন তার ডাকে ছুটে আসে হাজারও কর্মী।মানুষের এমন অতুলনীয় ভালোবাসার কারনে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন শত্রুর মোকাবিলা ও করতে হয়েছে তাকে।

সুমন মীর এলাকার মানুষদের কাছে এতটাই জনপ্রিয় যেটা স্ব -চোখে না দেখলে বিশ্বাস করার মত না।তার কিছুটা উদাহরণ দিয়েছেন সুমন মীরের সাথে থাকা রিফাত তালুকদার।তিনি আমাদের প্রিয় ভাইকে একদিন না দেখলে এবং তার দিক নির্দেশনার কথা না শুনলে যেন সারাদিনের চলার গতিটাই হারিয়ে ফেলি। জন প্রিয় এই মানুষটি গত ১০-১২ দিন কোন কারনে এলাকার বাহিরে থাকায় তার ভালোবাসার মানুষ গুলো যেন কুল কিনারা হারিয়ে ফেলেছিল।

এর পর এলাকায় আসার খবর শুনে মীর প্রেমীরা দলে দলে এসে দেখা করতে শুরু করে। কেউ ফুলের তোরা কেউ আবার ফুলের মালা দিয়ে বরন করে নিতে ব্যস্তছিলেন। তারই ধারাবাহিকতায় গেলো মঙ্গলবার বিকেলে আশুলিয়ার জামগড়ায় সুমন মীরের ব্যক্তিগত অফিসে দেখা করতে আসেন। ইয়ার পুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগ নেতা রিফাত তালুকদার,বাশেদ মীর,রশিদ ভূঁইয়া, সুজন মিয়া সিদ্দিক সুলতান, সেলিম মাদবর,বাশিদ প্রমুখ সহ আরো অনেক নেতা কর্মী।

পরিশেষে সুমন মীর বলেন। আমি আমার প্রিয় নেতা সুমন আহমেদ ভূঁইয়ার নেতৃত্বে রাজনীতি করি,এবং জীবনের বাকিটা সময় করে যাবো ইনশাআল্লাহ ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *