আশুলিয়ায় এক বাসা থেকে স্বর্ণসহ নগদ টাকা চুরির

 আশুলিয়ায় এক বাসা থেকে স্বর্ণসহ নগদ টাকা চুরির পর তোফাজ্জল হোসেন সাজ্জাদ (৯) নামে এক শিশুকে হত্যা করে পালিয়ে যাওয়ার ঘটনায় দু’জনকে আটক করেছে পুলিশ।বৃহস্পতিবার (২২ এপ্রিল) দিনগত রাতে তাদের আটক করে আশুলিয়া থানা পুলিশ।আটক নাজমুল রংপুর জেলার মিঠাপুকুর থানার কোশবন্য পুর গ্রামে অপরজনের নাম পরিচয় পাওয়া যায়নি।

জানা যায়, বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে আশুলিয়ার বাইপাইল নতুন পাড়া এলাকার আব্দুল মান্নানের মালিকানাধীন ৬ তলা ভবনের ৫ম তলার একটি কক্ষের বাথরুমের উপর কম্বল মোড়ানো অবস্থায় শিশুটির মরদেহ উদ্ধার করা হয়।নিহত শিশু সাজ্জাদ ভোলা জেলার সদর থানার চন্দ্রাবাদ গ্রামের ইউসুফ আলীর ছেলে। সে স্থানীয় আল আমিন মাদরাসায় পড়াশোনা করতো বলে জানা গেছে। পোশাক শ্রমিক বাবা-মায়ের সঙ্গে আশুলিয়ার বাইপাইল নতুন পাড়া এলাকার ওই বাড়িতে থাকতো সে।

স্থানীয়রা জানান, শিশু সাজ্জাদের মা খাদিজা বেগম পোশাক কারাখানায় কাজ করেন। কাজে যাওয়ার সময় তিনি সাজ্জাদকে বাসায় রেখে যান। বৃহস্পতিবার ছুটির পরে বাসায় ফিরে ছেলেকে দেখতে না পেয়ে অনেক খোঁজাখুঁজি করেন তিনি। পরে বাথরুমের উপরে সানসেডে কম্বলে মোড়ানো অবস্থায় মরদেহটি দেখতে পান। এছাড়াও ঘরের টাকা ও স্বর্ণালঙ্কার চুরি হয়। পরে তিনি কান্নায় ভেঙে পড়েন।

এ সময় পুলিশকে খবর দেওয়া হয়।নিহতের মা খাদিজা বেগম অভিযোগ করে বলেন, গতকাল পাশের বাসার নাজমুল আমার কাছে ১ হাজার টাকা ধার চেয়েছিলেন। আমি না দেওয়ায় তিনি আমার ছেলেকে খুন করেছেন এবং বাসা থেকে ১৪ আনা সোনা ও ৫ হাজার টাকা নিয়েছেন। আমি আমার ছেলের হত্যার বিচার চাই।

এ বিষয়ে আশুলিয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (অপারেশন) আব্দুর রাশিদ বাংলানিউজকে বলেন, শিশুটিকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে। তারপর বাথরুমের সানসেডের উপর রাখা হয়। আমরা প্রাথমিকভাবে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পাশের বাসার দু’জকে আটক করেছি। হত্যার কারণ এখনো পরিস্কার নয়। তবে সেই বাসাটিতে চুরিও হয়েছে। নিহত শিশুটির মরদেহ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *