আশুলিয়া গুমাইল উচ্চবিদ্যালয় ব্যাবস্থাপনা কমিটি নিয়ে নানা অনিয়মের অভিযোগ

সাভার উপজেলার আশুলিয়ায় গুমাইল উচ্চবিদ্যালয় ব্যাবস্থাপনা কমিটি নিয়ে নানা অনিয়মের অভিযোগ।কোন প্রকার নির্বাচন ছাড়াই বিশ বছর ধরে সভাপতি পদে বহাল রয়েছেন এক’ই ব্যক্তি। জানা যায় ১৯৯৩ সালে স্থানীয় কিছু গণ্যমান্য ব্যাক্তি নিয়ে এবংআশুলিয়া’রগুমাইল গ্রামের কৃতি সন্তান মৃত মোঃআলাউদ্দীন মাষ্টারও বর্তমান আহ্বায়ক কমিটির সভাপতি মমতাজউদ্দিন ভুঁইয়ার নেতৃত্বে একজন জাপানি নাগরিকের অর্থায়নে এলাকার গরিব অসহায় সুবিধা ববঞ্চিত পরিবারের ছেলে মেয়েদের পড়া লেখার জন্য স্কুল টি গড়ে তুলেন।সে সময় স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা প্রধান শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব দেওয়া হয় মোঃআবুল কাশেম মন্ডল কে এবং স্কুল পরিচালনা, প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি পদে দায়িত্ব পান মোঃ ধনু মন্ডল।

এর পর তাদের ঐক্যবদ্ধতা ও অক্লান্ত পরিশ্রম এবং সঠিক নেতৃত্বের মধ্যে দিয়ে খুব অল্প সময়ে ভালো সুনাম অর্জন করেন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান টি।কিন্তু প্রতিষ্ঠানটির শুরু লগ্ন থেকে ধনু মন্ডল সভাপতি পদে নেতৃত্ব দিলেও ১৯৯৩- ২০০০ সালের শেষের দিকে এই ৬-৭ বছর ধোনু মন্ডল সভাপতিত্ব করার পর তিনি বয়সের ভাড়ে অবসর নেন সেই সময় স্থানীয় ময়মুরুব্বিদের মতামত ও সিদ্ধান্তের ভিত্তিতে রথবদল হয় বর্তমান আহ্বায়ক কমিটির সভাপতি মোঃ মমতাজউদ্দিন ভুঁইয়ার কাছে।তিনি ২০০০ সাল থেকে ২০২০ সাল পযন্ত সভাপতিত্ব করেন এবং বর্তমান আহ্বায়ক কমিটির সভাপতি হিসেবে আছেন বিদ্যালয়টিতে।

কিন্তু মোমতাজউদ্দিন ভুঁইয়ার ২০ বছরের সভাপতিত্ব কে কেন্দ্র অনেক অনিয়ম দুর্নীতির ও নানা জল্পনা কল্পনার গুঞ্জন তৈরি হয়েছে এবং বিভিন্ন প্রশ্ন তুলেছেন জনমনে।

কি সে অনিয়ম দুর্নীতি?, জানতে সংবাদকর্মীরা সরেজমিনে তথ্য সংগ্রহ করতে গেলে উঠে আসে ভিন্ন চিত্র।সংগৃহীত তথ্যের ভিত্তিতে জানা যায় বর্তমান সভাপতি মমতাজউদ্দিন ভুঁইয়া ২০ বছর ধরে সভাপতিত্ব করে আসছেন ঠিক’ই কিন্তু স্ব-ইচ্ছায় নয়।

মমতাজউদ্দিন ভুঁইয়াকে বার বার সভাপতি পদে বহাল রেখে অন্য এক পক্ষ সুবিধা নিচ্ছেন বলে অভিযোগ অনেকের।কে বা কাহারাএই অন্য পক্ষ? জানতে আবারো অনুসন্ধান সংবাদকর্মীদের, সকল তথ্যের ভিত্তিতে জানা গেলো সে আর কেউ নয়।

গুমাইল উচ্চবিদ্যালয়ের বর্তমান প্রধান শিক্ষক মোঃ বারেক মোল্লা।স্থানীয় কিছু লোক জন বলেন বারেক মোল্লা তার নিজের সার্থে বার বার মমতাজউদ্দিন ভুঁইয়া কে সভাপতি পদে বহাল রাখার জোর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

কেনো প্রধান শিক্ষক বার বার মোম তাজউদ্দিন ভুঁইয়া কে সভাপতির চেয়ারে রাখতে চান এমন প্রশ্নের উত্তর জানতে চাইলে,একজন অবিভাবক সদস্য মোঃ সরিফ মন্ডল বলেন মোমতাজউদ্দিন ভুঁইয়া একজন সৎ ও নিষ্ঠাবান মানুষ এবং কঠোর পরিশ্রমী ও ব্যস্ত মানুষ তিনি বেশিরভাগ সময় তার ব্যক্তিগত কাজে দেশের বাহিরে থাকেন যে কারনে তিনি স্কুলে ৯৯ ভাগ মিটিং অনুপস্থিত থাকেন।

আর সেই সুযোগ কে কাজে লাগিয়ে প্রধান শিক্ষক বারেক মোল্লা বিভিন্ন অনিয়ম দুর্নীতি ও হিসাব গড়মিলের পায়তারাই মেতে উঠেন বলে জানান তিনি। তিনি আরো বলেন প্রধান শিক্ষক বারেক মোল্লার একজন দায়িত্ব জ্ঞানহীন মানুষ।

তার দায়িত্বহীনতা ও গাফিলতির কারনে দিন দিন বিদ্যালয়টি ধংশের দিকে চলে যাচ্ছে।তিনি শিক্ষর্থীদের সাথে খারপ আচরন করেন বলেও অভিযোগ করেন সরিফ মন্ডল।

আর এক জন অবিভাবক সদস্য সরিফ সরকার জানান গুমাইল উচ্চ-বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বারেক মোল্লার অনিয়ম দুর্নীতি ও সেচ্ছাচারিতার লেখিত অভিযোগ পত্র ঢাকা জেলা শিক্ষা অফিসে পাঠানো হয়েছে।

বিষয়টি তদন্ত করে সত্যতা পাওয়া গেলে যথাত ব্যাবস্থা নিবেন বলে জানিয়েছেন ঢাকা জেলা শিক্ষা অফিস কতৃপক্ষ। বর্তমান আহ্বায়ক কমিটির সভাপতি মোঃ মোমতাজউদ্দিন ভুঁইয়ার কাছে তার ২০ বছরের সভাপতিত্ব ও প্রধান শিক্ষক’র সেচ্ছাচারিতার কথা জানতে চাইলে তিনি বলেন। আমি ২০ বছর যাবৎ বিদ্যালয়ে সভাপতি পদে আছি এটা সত্য কিন্তু আমি বেশিরভাগ সময় নিজের পেশায় ব্যাস্ত থাকায় বিদ্যালয়টিতে সময় দিতে পারিনা।

এখন আরো বয়স হয়ে গেছে আমার। আমি চায় বিদ্যালয়ের সকল কার্জক্রম থেকে অব্যহতী নিতে,কিন্তু এলাকার লোকজন এবং বিদ্যালয়ের শিক্ষকেরা আমার সম্মানের সার্থে আমাকে বার বার বিদ্যালয়ের ব্যাবস্থাপনা কমিটিতে রাখে।মুল আমার আর সেখানে থাকার কোন ইচ্ছে নেই।

প্রধান শিক্ষক বারেক মোল্লার উপর আনা লেখিত অভিযোগের কথা সাভার উপজেলা শিক্ষা অফিসার কামরুন্নাহার কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন প্রধান শিক্ষকের ব্যাপারে আমার কাছেও এমন অভিযোগ আসছে আমি বিষিয়টি তদন্ত করে দেখেছি এবং একটি তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেওয়া হয়েছে। আর ব্যাবস্থাপনা কমিটির বিষয়টি আমি যতদুর জানি যে গত ৩ মাস আগে আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে।

এবং সেই আহ্বয়ক কমিটিতে বিগত দিনের সভাপতি মোমতাজউদ্দিন ভুঁইয়া কে আবারে সভাপতি পদে রাখা হয়েছে।যদিও ২০১৯ সংশোধনীয় আইনে লেখা আছে একজন ব্যাবস্থানা কমিটির সভাপতি পদে দুই বারের অধিক ক্ষমতায় থাকতে পারবে না কিন্তু তারা তা মানছেনা। এটা ২০১৯ এর সংশোধনী আইন অনুযায়ী নিয়ম বহির্ভূত।

এই বিষয় ও আমি বিদ্যালয় পরিদর্শন করে তাদেরকে সরাসরি অবগত করে আসি।সাভার উপজেলার সম্মানিত চেয়ারম্যান মুনজুরুল আলম রাজিব এর সাক্ষরিত একটি ডিউ লেটার আমার হাতে আসলে তাতক্ষনিক আমি কয়েকশ স্থানীয় লোক জনের সামনে বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে শরিফ সরকার নামে একজন অবিভাবক সদস্যকে সভাপতির ভারপ্রাপ্ত দায়িত্ব দিতে বলি কিন্তু প্রধান শিক্ষক আমার কথা এবং সাভার উপজেলা চেয়ারম্যান কে অমান্য করে নিজেরাই আহ্বায়ক কমিটি গঠন করেছেনএটা দুঃখজনক বলেও জানান সাভার উপজেলা শিক্ষা অফিসার কামরুন্নাহার।

এ বিষয়ে গুমাইল উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বারেক মোল্লা কাছে জানতে চাইলে তিনি সব কিছু মিথ্যা এবং বানোয়াট বলে এরিয়ে যান।

পর্ব -১

তড়িঘড়ি করে রাতেই জিম্বাবুয়েতে পাঠানো হচ্ছে এবাদত-নাঈমকে

টি-টোয়েন্টি বা ওয়ানডে, জিম্বাবুয়ে সফরে খুব একটা সাফল্য পাচ্ছে না বাংলাদেশ দল। গতকাল শুক্রবার প্রথম ওয়ানডেতে বাজেভাবে হেরেছে লাল-সবুজের দল।...

Read more

সর্বশেষ

ADVERTISEMENT

© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত

সম্পাদক ও প্রকাশক : মাে:শফিকুল ইসলাম
সহ-সম্পাদক : এডভােকেট-মাে: আবু জাফর সিকদার

কার্যালয় : হোল্ডিং নং ২৮৪, ভাদাইল, আশুলিয়া, সাভার, ঢাকা-১৩৪৯

যোগাযোগ: +৮৮০ ১৯১ ১৬৩ ০৮১০
ই-মেইল : [email protected]

দৈনিক আমাদের খবর বাংলাদেশের একটি বাংলা ভাষার অনলাইন সংবাদ মাধ্যম। ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮ থেকে দৈনিক আমাদের খবর, অনলাইন নিউজ পোর্টালটি সব ধরনের খবর প্রকাশ করে আসছে। বাংলাদেশের সবচেয়ে প্রচারিত অনলাইন সংবাদ মাধ্যমগুলির মধ্যে এটি একটি।

ADVERTISEMENT
x