একই গাছে বেগুন ও গাছের গোড়াতে আলু চাষ সম্ভব যা ইতিহাসে প্রথমবার

শীতকালীন বেগুনের চারা ও আলু গাছের জোড় কলমের মাধ্যমে উদ্ভাবন হলো ব্রিঞ্জালু নামের স্বতন্ত্র একটি উদ্ভিদ। যা দেশে এই প্রথম। এর উদ্ভাবক আইইউবিএটি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. এ এম ফারুক। তাঁর দাবি, নতুন এই উদ্ভিদের বাণিজ্যিক আবাদ করা গেলে সাশ্রয় হবে কৃষি জমি।গাছ একটি। কিন্তু পাতার গড়নের সাথে নেই কান্ডের মিল।

শুধু তাই নয়, পাতার ফাঁকে শোভা পাচ্ছে বেগুনও। সাথে গাছের গোড়ায় ধরেছে আলুও। উপরে বেগুন আর নিচে আলু উৎপাদন হওয়া এই গাছটিকে বিজ্ঞানীরা নাম দিয়েছেন ব্রিঞ্জালু।

ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভারসিটি অব বিজনেজ এগ্রিকালচার এন্ড টেকনোলজি-আইইউবিএটি অধ্যাপক ড. এ এম ফারুকের নেতৃত্বে একদল কৃষি গবেষক এই উদ্ভাবনটি করেন।

শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য কৃষিবিদ ড. এ এম ফারুক জানান, সোলানেসি পরিবারের শীতকালীন বেগুনের চারা ও আলু গাছের জোড় কলমের মাধ্যমে তৈরি করেছেন ব্রিঞ্জালু নামের স্বতন্ত্র এই উদ্ভিদ। যা দেশের ইতিহাসে প্রথম।নতুন এই প্রযুক্তিকে সফলতার শীর্ষে পৌছাতে গাছের নিয়মিত পরীক্ষা নিরিক্ষার কাজ করেছন গবেষকরাও।

তাছাড়া, চাষিদের সঠিক প্রশিক্ষণ দিলে এই নতুন উদ্ভিদের বানিজ্যিকভাবে চাষ করে আলু ও বেগুনের আওতায় থাকা জমি কমানো সম্ভব, দাবি বিজ্ঞানীদের।

কৃষি মন্ত্রনালয়ের হিসাবে, দেশে বছরে ৫ লাখ হেক্টর জমিতে আলু আর ৩৪ হাজার হেক্টর জমিতে বেগুনের আবাদ হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *