কালীগঞ্জ উপজেলার অতন্দ্র প্রহরী উপজেলা চেয়ারম্যান জনাব সাঈদ মেহেদী 

হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের আদর্শে গড়া বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কালীগঞ্জ থানার সিনিয়র সহ সভাপতি উপজেলা চেয়ারম্যান সাঈদ মেহেদী ছাত্র জীবনে সত্যকে বুকে লালন করে মিথ্যাকে   পরাজিত করে বঙ্গবন্ধুর আদর্শে আদর্শিত হয়ে ছাত্র রাজনীতি থেকে উঠে এসে আওয়ামী লীগের কালীগঞ্জ উপজেলার সিনিয়র সহ সভাপতি বর্তমান উপজেলার চেয়ারম্যান হিসাবে অত্যান্ত সুনামের সহিত নিজ দায়িত্ব পালন করে জনগণের ভালোবাসায় শিক্ত হয়েছেন। তিনি গরিব মেধাবী দুস্ত ছাত্র ছাত্রীদের বই কেনা সহ বিভিন্ন ভাবে সহযোগিতা দিয়ে যাচ্ছেন তিনি দুস্ত রুগীদের কে বিভিন্ন ভাবে সহযোগিতা দিয়ে যাচ্ছেন তিনি প্রতিবন্ধীদের কে বিভিন্ন ভাবে সহযোগিতা দিয়ে যাচ্ছেন। তিনি সহায় সম্বলহীন দিনমুজুর বাস্তহারা মানুষের ঘর তৈরি করে দেওয়া সহ বিভিন্ন ভাবে সহযোগিতা দিয়ে যাচ্ছেন। তিনি মসজিদ মাদ্রাসা মন্দির  সহ বিভিন্ন ধর্মিও প্রতিষ্ঠানের প্রতি সজাগ দৃষ্টি রেখে সার্বিক ও আর্থিক সহযোগিতা করে যাচ্ছেন।

তিনি অগনিত সমস্যা বিচার কার্জ পরিচালনার মাধ্যমে সমাধান করে চলেছেন। তিনি মাদক সেবি ও মাদক ব্যবসায়ীদের মুর্তিমান আতঙ্ক হয়ে দাঁড়িয়েছেন। তিনি খেলার মাঠের খেলার সামগ্রী কিনে দিয়ে ভেঙে গুড়িয়ে দিয়েছেন মাদকের আড্ডা। যুব সমাজকে উদ্বুদ্ধ করতে নানা কর্মসুচির মাধ্যমে বেকারত্ব দুর করনের জন্য শতভাগ প্রচেষ্টা চালিয়ে সফলতা অর্জন করেছেন। সোনার বাংলার উন্নয়নে ডিজিটাল বাংলার রুপকার বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্ব কে সম্মান জানিয়ে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের সাথে সুসম্পর্ক রেখে কাজকরে যাচ্ছেন

।বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী জনাব ওবায়দুল কাদেরের সাথে সুসম্পর্ক রেখে বাংলাদেশ কে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য এবং সাতক্ষীরা জেলাকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য সাতক্ষীরা ৩ আসনের এম পি সাবেক সফল সাস্থ মন্ত্রী ডঃ আ ফ ম রুহুল হকের সাথে একযোগে কাজ করে যাচ্ছেন। নিজ এলাকা কালীগন্জ উপজেলা ও শ্যামনগর তথা সাতক্ষীরা ৪ আসনের নির্বাচিত জন বন্ধু এস এম জগলুল হায়দারের সাথেও সুম্পর্ক রেখে কাজ করে যাচ্ছেন। নিজ এলাকার শিশু থেকে বৃদ্ধারাও সাঈদ মেহেদীর জন্য ভক্তি ভরে দোয়া করেন ।
কালীগঞ্জের আপাময় জনগন সকল শ্রেনী পেশার মানুষের নিকট সাঈদ মেহেদী এক উজ্জ্বল দর্পন হিসাবে দেখা দিয়েছেন।সাঈদ মেহেদী বিগত দিনে একবার উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে সততার সহিত দায়িত্ব পালন করেছিলেন কোনো রকম দুর্নীতি তাকে স্পর্শ করতে পারেনি। তার এই ভালোবাসায় জনগন তাকে বিগতদিনের ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচন করার সময়ে উড়োজাহাজ মার্কা প্রতিক কে অভিনন্দন জানিয়ে ছিলেন। কোনো কারন বসত তাকে একদল কুচক্রী মহল  নির্বাচন করতে না দেওয়ার জন্য বিভিন্ন পন্থা অবলম্বন করে মিথ্যা বানোয়াট ভিত্তিহীন প্রচেষ্টায় সফল হয়ে ভোটের ঠিক আগের রাত্রে উড়জাহাজ মার্কাকে সরকার কতৃক  সরিয়ে ফেলার নির্দেশ প্রেরন করেন। কিন্তুু জনগণের মন থেকে তাকে সরানো সেদিন কঠিন হয়েছিলো উড়োজাহাজ প্রতিকে ভোট গ্রহন যোগ্য না হলেও জনগন সেদিন পাইলটের ভূমিকা পালন করে উড়োজাহাজ চালিয়ে ছিলো ব্যালেটের মাধ্যমে। তাদের প্রানের নেতাকে তারা ভুলিনাই বহু ভোটের মাধ্যমে উড়োজাহাজ চালিয়ে সাঈদ মেহেদীকে চিরন্তন বিজয় এনে দিয়েছিলেন।বিগত দিনে তার এলাকা কালীগঞ্জ উপজেলার 12 নং মৌতলা ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করে আঁকাশ ছোয়া ভোটের মাধ্যমে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন এবং সফল চেয়ারম্যান হিসাবে নিজেকে তুলে ধরতে সক্ষম হন। তিনি খুলনা বিভাগের একজন শ্রেষ্ঠ জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত হয়ে বহু পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন।জনগণের ভালোবাসা আজও তিনি ভূলিনাই সরল মনে সকল মানুষের মঙ্গলের জন্য কাজ করে যাচ্ছেন তিনি। কালীগন্জ উপজেলার সকল শ্রেনী পেশার মানুষের মঙ্গলের জন্য ছোট কাল থেকে তার চিন্তা চেতনা। তিনি 2013 সালে দেশের অরাজকতা সৃষ্টির সময় সর্ব দলীয় লোকজনদের কে সাস্থসেবা সহ সকল বিষয়ে মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে সেবা করেছেন এবং দুর্বিত্বদের কালো হাত ভেঙ্গে গুড়িয়ে দিতে সক্ষম হয়েছেন। তার কথা মানুষ ভূলিনাই 2019 সালের উপজেলা নির্বাচনে তিনি আওয়ামী লীগের মননীত ব্যাক্তি নির্বাচনে সকলের উদ্ধে ভোট পেলেও একদল স্বার্থনেস্বীদের কারনে দলীয় প্রতিক থেকে বন্চিত হন। কিন্তুু জনগন তাকে সতন্তর পদে নির্বাচন করাতে বাধ্য করেন  তিনি জনগনের ভালোবাসায় সতন্তর পদে ঘোড়া মার্কা প্রতিক নিয়ে নির্বাচন করেন।জনগন সৎ যোগ্য নির্ভীক ভালোবাসার মানুষ চিনতে ভূল করেননি ব্যালেটের মাধ্যমে উপযুক্ত জবাব দিয়ে বঙ্গবন্ধুর নৌকাকে ঘোড়ার পিঠে বসে ধরতে সক্ষম হয়েছেন আঁকাশ,ছোয়া ভোট পেয়ে কালীগঞ্জ উপজেলার চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হয়েছেন।উপজেলা পরিষদের সম্মানিত চেয়ারম্যান হয়ে কালীগন্জ উপজেলা ও পার্শবর্তী শ্যামনগর উপজেলার   ঘুর্নিঝড়.বুলবুল মুকাবিলা করতে 24 ঘন্টা পরামর্শ করে জনগণের পাশে পাশে ছিলেন। তিনি তার নির্বাচিত এলাকা কালীগন্জ কাকশিয়ালী নদি ভাড়াশিমলার অর্ন্তরগত নদিভাঙ্গনে দিবা রাত্র কাজ করে ঘের ভেড়ি ঘর বাড়ি প্লাবিত হওয়া থেকে জনমানুষের পাশে থেকে সহযোগিতা করে সফল হয়েছেন।তার এই সাফল্যের পেছনে তাঁর সঙ্গে তারই সহদর ভাই জনাব আশিক মেহেদীর অবদান অপরিশিম সার্বিক মানসিকও পারিবারিক ভাবে সহযোগিতা দিয়ে যাচ্ছেন তারই সুযোগ্য সু শিক্ষীত সহ ধর্মিনী। এক কথায় কালীগঞ্জ উপজেলাকে বাংলাদেশের এক নং উপজেলায় পরিনত করার দৃঢ় প্রত্যাশা তার।জনগণের জন্য সকল শ্রেনী পেশার মানুষের জন্য তার নিজ ব্যবহৃত মোবাইল ফোন চব্বিশ ঘণ্টা খোলা রেখেছেন। তার নিজস্ব বাসভবনে ধনী গরীব ফকির মিসকিন অসহায় সম্বলহীন সকল মানুষের জন্য তার গৃহ দরজা খোলারেখেছেন।    নতুন বছর 2020 সালের সাতক্ষীরা জেলার কালীগঞ্জ থানার প্রত্যেকটা ইউনিয়নে প্রত্যেকটা ওয়ার্ডে সরকারি কবরস্থান করার জন্য পরিকল্পনা মাথায় নিয়েছেন।তার এই মুহতী উদ্যোগকে অভিনন্দন জানিয়েছেন উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সহ এলাকার গুনিজনেরা কালীগন্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জনাব সাঈদ মেহেদী তার নির্বাচনী এলাকা নিয়ে যদি কারো কোন অভিযোগ অনুযোগ বা পরামর্শ থাকে তাহলে নির্দ্বিধায় নির্ভয়ে নিশ্চিন্তে পরামর্শ প্রদান করতে বলেন এবং বলেন তিনি তার সাধ্য মত সকল সমস্যার সমাধানের চেষ্টা করে যাবে ইনশাআল্লাহ ।

আমাদের খবর / আকরাম হোসেন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *