তিন দিনে প্রায় ১ লাখ ২৫ হাজার মুঠোফোন ‘অবৈধ’ শনাক্ত

বিজ্ঞান ও টেক

মুঠোফোনের বৈধতা যাচাইয়ে ন্যাশনাল ইকুইপমেন্ট আইডেনটিটি রেজিস্ট্রার (এনইআইআর) ব্যবস্থা চালুর পর তিন দিনে প্রায় সোয়া লাখ ‘অবৈধ’ ফোন শনাক্ত হয়েছে।

বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি) জানিয়েছে, যেসব মুঠোফোন শেষ পর্যন্ত নিবন্ধন পাবে না, সেগুলো ধাপে ধাপে বন্ধ করে দেওয়া হবে।তিন মাস পরীক্ষামূলকভাবে চালানোর পর গত শুক্রবার (১ জুলাই) থেকে অবৈধ মুঠোফোন শনাক্তের ব্যবস্থা আনুষ্ঠানিকভাবে চালু হয়।

ওই দিনের আগপর্যন্ত নেটওয়ার্কে যুক্ত হওয়া সব ফোন ব্যবহার করতে পারছেন গ্রাহক। এ ক্ষেত্রে বৈধ–অবৈধ বিবেচনা করা হচ্ছে না। তবে নতুন করে কোনো অবৈধ মুঠোফোন নেটওয়ার্কে যুক্ত হলে তা বন্ধ করে দেওয়া হবে বলে বিটিআরসি জানিয়েছে।

এদিকে বিটিআরসির পক্ষ থেকে আজ সোমবার রাজধানীর বিভিন্ন বিপণিবিতানে গিয়ে অবৈধ মুঠোফোন বিক্রি না করার বিষয়ে প্রচারণা চালায়।

কর্মকর্তারা ঢাকার মোতালিব প্লাজা, বসুন্ধরা সিটি শপিং কমপ্লেক্স ও সীমান্ত স্কয়ারে গিয়ে বিক্রেতাদের জানিয়ে দেন যে অবৈধ মুঠোফোন বিক্রি করলে তা ফেরত দিতে হবে।

বিটিআরসি সূত্র বলছে, তাদের কাছে তথ্য আছে যে এরপরও জেনে–শুনে কেউ কেউ কম দামে পেয়ে অবৈধ মুঠোফোন কিনছে। তাঁরা মনে করছে এগুলো একবার চালু হলে বন্ধ হবে না। কিন্তু বিষয়টি তা নয়। বন্ধ হবে।

বিটিআরসির ভাইস চেয়ারম্যান সুব্রত রায় মৈত্র প্রথম আলোকে বলেন, গ্রাহকের উচিত যাচাই–বাছাই করে মুঠোফোন কেনা।

বিটিআরসি সূত্র জানায়, তিন দিনে নেটওয়ার্কে নতুন করে সক্রিয় হয়েছে ৩ লাখ ৪৯ হাজার ৬৫২টি মুঠোফোন। এর মধ্যে ১ লাখ ২৪ হাজার ৮৬১টির তথ্য বিটিআরসির তথ্যভান্ডারে ছিল না। এর মানে হলো, এসব ফোন হয় অবৈধভাবে আমদানি, অথবা প্রবাসীরা দেশে ফেরার সময় নিয়ে এসেছেন।

দেশে ইউনিক ইউজার ৫৪ শতাংশ। ইউনিক ইউজারের ক্ষেত্রে এক ব্যক্তির একাধিক সিম থাকলেও তাঁকে একজন গ্রাহক ধরে হিসাব করা হয়।

বিটিআরসির হিসাবে, নেটওয়ার্কে সক্রিয় সেটের সংখ্যা ২৩ কোটির মতো। এর মধ্যে গত ১ জুলাই থেকে ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত যুক্ত হয় ১ কোটি ৮ লাখের কিছু বেশি মুঠোফোন, যা মধ্যে প্রায় ৩১ লাখ ৪৬ হাজার অবৈধ বলে শনাক্ত হয়। এসব সেট বন্ধ করেনি বিটিআরসি। বন্ধ করার কোনো চিন্তাও নেই।

বিটিআরসি বলছে, মুঠোফোন কেনার যাচাই করে কিনতে হবে। যাচাইয়ের পদ্ধতি হলো মুঠোফোনের মেসেজ অপশনে গিয়ে KYD<space>১৫ ডিজিটের IMEI নম্বরটি লিখুন। ১৬০০২ নম্বরে পাঠান। ফিরতি খুদে বার্তায় বৈধতা সম্পর্কে জানতে পারবেন।

বৈধ বলে বিক্রির পর অবৈধ শনাক্ত মুঠোফোনের টাকা কোনো বিক্রেতা ফেরত দিতে না চাইলে বিটিআরসির কাছে অভিযোগ জানানো যাবে। এ ক্ষেত্রে অভিযোগ জানাতে একটি ওয়েবসাইট খোলা হবে বলে জানান বিটিআরসির মহাপরিচালক শহীদুল আলম।

বিটিআরসি এনইআইআর ব্যবস্থার কয়েকটি সুবিধার কথা বলছে—১. নতুন ব্যবস্থা চালুর পর গ্রাহকের নামে নিবন্ধিত সব কটি সিম, মুঠোফোন ও জাতীয় পরিচয়পত্রের (এনআইডি) নম্বর সমন্বিতভাবে নিবন্ধিত হবে। এতে ডিজিটাল নিরাপত্তা বাড়বে এবং সরকারি সেবা পাওয়া সহজ হবে। ২. দেশে ১৫টি কোম্পানি মুঠোফোন উৎপাদন করে।

মোট সেটের ৬৩ শতাংশই দেশে উৎপাদিত হয়। অবৈধ সেট বন্ধ হলে তারা সুফল পাবে এবং সরকারের রাজস্ব বাড়বে। ৩. চুরি যাওয়া সেট নেটওয়ার্কে সক্রিয় করা যাবে না। মুঠোফোন ব্যবহার করে অপরাধ নিয়ন্ত্রণ করা যাবে।

দেশে এখন একটি স্মার্টফোন আমদানিতে মোট করভার ৫৭ শতাংশ। ফলে বৈধভাবে আমদানি ও অবৈধভাবে আনা ফোনের দামের পার্থক্য অনেক বেশি হয়।3

সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, দেশে মুঠোফোন ব্যবহারকারীদের মধ্যে মাত্র ৪১ শতাংশ স্মার্টফোন ব্যবহার করেন। স্মার্টফোন সহজলভ্য করতে দাম কমানোর দিকে বিটিআরসিকে নজর দিতে হবে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একটি মোবাইল অপারেটরের একজন কর্মকর্তা প্রথম আলোকে বলেন, ভারতে ৬৯, পাকিস্তানে ৫১, নেপালে ৫৩ ও শ্রীলঙ্কায় ৬০ শতাংশ মুঠোফোন ব্যবহারকারীর হাতে স্মার্টফোন রয়েছে। বাংলাদেশে এ হার ৪১ শতাংশ।

এর কারণ মুঠোফোনের চড়া দাম। তিনি বলেন, মানুষকে স্মার্টফোন ব্যবহারে উৎসাহিত করতে কিস্তিতে দেওয়ার ব্যবস্থা করা যেতে পারে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *