দেশে বেড়েই চলেছে ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাব আক্রান্ত বেশি ঢাকায়

বিজ্ঞান ও টেক

দেশে বেড়েই চলেছে ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাব। এ অবস্থায় ডেনভি-৩ নামে ডেঙ্গুর নতুন একটি ধরন শনাক্ত হয়েছে। ঢাকার অধিকাংশ রোগীরা এই ধরনটিতে আক্রান্ত হচ্ছেন বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ বিজ্ঞান ও শিল্প গবেষণা পরিষদ (বিসিএসআইআর)। ২০টি নমুনার জিনোম সিকোয়েন্স করে ডেঙ্গুর নতুন এই ধরনের কথা জানিয়েছে সংস্থাটি।

রোববার (২৯ আগস্ট) বিসিএসআইআরের আইএফআরডি অডিটোরিয়ামে আয়োজিত ডেঙ্গু ভাইরাসের জিনোম সিকোয়েন্সিংয়ের তথ্য উন্মোচন অনুষ্ঠানে এসব তথ্য জানানো হয়। অনুষ্ঠানে গবেষণা প্রতিবেদন তুলে ধরেন প্রতিষ্ঠানটির প্রধান গবেষক ড. সেলিম খান।

বিসিএসআইআররের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মো. আফতাব আলী শেখ বলেন, ‘বিসিএসআইআরের জিনোমিক গবেষণাগারে একই সঙ্গে ২০ জন ডেঙ্গু ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর থেকে নমুনা সংগ্রহ করে জিনোম সিকুয়েন্সিয়ের কাজ সম্পন্ন করা হয়েছে।

বিশ্লেষণকৃত নমুনাগুলো পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে জানা যায়, এই নমুনা ডেঙ্গু ভাইরাসের ডিইএনভি ৩, অর্থাৎ সোরোটাইপ-৩ এর অন্তর্গত।’জিনোম সিকোয়েন্সের তথ্য তুলে ধরে তিনি বলেন, ‘ডেঙ্গু ভাইরাস ফ্লাভিভাইরাস গ্রুপের অন্তর্গত একটি পজিটিভ সেন্স আরএনএ ভাইরাস।

ডেঙ্গুর চারটি সেরোটাইপ যা ডিইএনভি ১, ডিইএনভি ২, ডিইএনভি ৩, এবং ডিইএনভি ৪, এর মাধ্যমে প্রকাশ করা হয়। এই ভাইরাসের চারটি সেরোটাইপের মধ্যে ৬৫% -৭০% এমিনো এসিড সিকুয়েন্সের মিল আছে। ভাইরাসটি এডিস মশার মাধ্যমে ছড়ায় এবং মশার মাধ্যমে মানবদেহে সংক্রমিত হয়।’

আফতাব আলী শেখ বলেন, ‘প্রতি বছর বিশেষ করে বর্ষা মৌসুমে বাংলাদেশে ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাব দেখা যায় এবং এটি বাংলাদেশে সংক্রমিত রোগের মধ্যে অন্যতম।

যদিও বাংলাদেশে ১৯৬৪ সালে প্রথম ডেঙ্গু রোগী চিহ্নিত হয়, তবে ২০০০ সালে প্রথমবারের মতো এই ভাইরাসের সংক্রমণ বাংলাদেশে মহামারি আকার ধারণ করে।’

আইইডিসিআরের গবেষণা অনুযায়ী, ২০১৬ সালের আগে সেরোটাইপ ডিইএনভি ১, এবং ডিইএনভি-২ এর মাধ্যমে মহামারি সংঘটিত হয়, তখন পর্যন্ত বাংলাদেশে বাকি দুটি সেরোটাইপ শনাক্ত হয়নি।

২০১৭ সালে ডিইএনভি ৩ প্রথম শনাক্ত হয় এবং ২০১৮ সালে ডিইএনভি ৩ এর সংক্রমণের সংখ্যা বাড়তে শুরু করে এবং ২০১৯ সালে এটি মহামারি আকার ধারণ করে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০১৯ সালে প্রায় ৪০ হাজার মানুষ ডেঙ্গু আক্রান্ত হয় এবং আক্রান্তদের মধ্যে প্রায় ২৯ জন মারা যান।

যদিও ২০১৯ সালে ডেঙ্গু ভাইরাসের একটি মাত্র নমুনার জিনোম সিকোয়েন্স করা হয়, সেখানে সেরোটাইপ-২ শনাক্ত হয়। এবছর এখনো পর্যন্ত ১০ হাজারের বেশি ডেঙ্গু আক্রান্ত ব্যক্তিকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে এবং এদের মধ্যে ৪০ জনের মৃত্যু হয়েছে

সংস্থাটির দেয়া তথ্যমতে, এ বছর জুলাই থেকে ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাব শুরু হলে বাংলাদেশে ডেঙ্গুর ব্যাপকতা নির্ধারণের জন্য বিসিএসআইআরের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মো. আফতাব আলী শেখের সার্বিক নির্দেশনায় ডেঙ্গু ভাইরাসের নমুনার জিনোম সিকুয়েন্সিংয়ের কার্যক্রম হাতে নেওয়া হয়।

বিসিএসআইআরের জিনোমিক গবেষণাগারে একই সঙ্গে ২০ জন ডেঙ্গু ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর থেকে নমুনা সংগ্রহ করে জিনোম সিকুয়েন্সিয়ের কাজ সম্পন্ন করা হয়েছে।

বিশ্লেষণকৃত নমুনাগুলো পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে জানা যায়, এই নমুনা ডেঙ্গু ভাইরাসের ডিইএনভি ৩, অর্থাৎ সোরোটাইপ-৩ এর অন্তর্গত।

ডেঙ্গুর মিউটেশন বিষয়ক উল্লেখ্যযোগ্য গবেষণা না থাকায় এসব মিউটেশন ডেঙ্গু ভাইরাসের সংক্রমণের প্রভাব শনাক্ত করা সম্ভব হয়নি।

যেহেতু নমুনাগুলো শুধু ঢাকার একটি হাসপাতাল থেকে পাওয়া, সেক্ষেত্রে সারাদেশে ডেঙ্গুর বিস্তৃতি জানার জন্য আরও বেশিসংখ্যক জিনোম সিকুয়েসিং করা প্রয়োজন বলে জানান অধ্যাপক ড. মো. আফতাব আলী শেখ।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইরোলজি বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডা. সাইফুল্লাহ মুন্সী বলেন, ‘২০১৩ থেকে আমাদের দেশে সেরোটাইপ ১ এবং ২ অনেক ছিল। সেরোটাইপ ৩ এর কোনো অস্তিত্ব ছিল না।

ধীরে ধীরে ১ এবং ২ শেষ হয়ে গেল, এখন আবার ৩ এর মাধ্যমে আমরা আক্রান্ত হচ্ছি। তাহলে এই যে জনগোষ্ঠীর যারা ১ এবং ২ -এ আক্রান্ত হয়েছিল, তারা কিন্তু এখন অন্য একটি সেরোটাইপ দিয়ে আক্রান্ত হচ্ছে।

এতে মানুষের যে হেমারেজ বা শক হয়, আক্রান্ত হওয়ার পর তাতে সম্ভাবনা বেড়ে গেল। এটা চিকিৎসকদের জন্য কিন্তু অ্যালার্মিং।’

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. জিয়াউল আহসান, জিনোমিক রিসার্চ ল্যাবের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ও প্রকল্প পরিচালক ড. সেলিম আহমেদসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *