নদী তীরবর্তী এলাকার মানুষ নতুন নৌকা তৈরিতে ব্যস্ত সময় পার করছেন

রুবেল আকন্দ সাঘাটা প্রতিনিধিঃ

গাইবান্ধার  নদ নদীগুলোতে বেড়েছে পানি। চলাচলের সুবিধার জন্য নদী তীরবর্তী এলাকার মানুষ নতুন নৌকা তৈরিতে ব্যস্ত সময় পার করছেন। তাদের মনে এখন আনন্দ উল্লাস বিরাজ করছে। কেননা বছরের অন্য মাসগুলো তাদের যেমনি কাটুক তারা বর্ষার আগমনের অপেক্ষায় থাকে।

নদীতে ইতোমধ্যেই পানি বাড়তে শুরু করেছে। সে কারণে পূর্ব প্রস্তুতি মোতাবেক গাইবান্ধার তিস্তা তীরবর্তী গ্রামের জেলে ও মাঝিরা নৌকা মেরামতে ব্যস্ত সময় পার করছেন।

এলাকাবাসী জানান, গাইবান্ধার তিস্তা তীরবর্তী এলাকার মানুষের বছরের ছয় মাস নদী পথে নৌকায় চলাচল করতে হয়। বাকী ছয় মাস খেয়াঘাটে মূল নদী নৌকায় পার হতে হয়।

তাছাড়া ধু-ধু বালু চরে পায়ে হেঁটে চলাচল করতে হয়। চরবাসি বার মাসের দুঃখ এবং কষ্ট যেন চিরচারিত নিয়মে পরিণত হয়েছে। চরের অনেক পরিবারের নিজস্ব নৌকা রয়েছে।

বেশির ভাগ নৌকা জেলে এবং নৌ-শ্রমিকরা ভাড়ায় চালায়। আর দুই এক মাস পরেই বন্যার আশঙ্কা রয়েছে। সে কারণে নৌকা মেরামত করা হচ্ছে। একটি বড় এবং ছোট নতুন নৌকা তৈরি করতে ২ লাখ হতে ৫০ হাজার টাকা লাগে।

নৌকা মেরামত শ্রমিকরা জানান, তাদের দিন হাজিরা ৬০০ টাকা। একটি নতুন নৌকা তৈরি করতে ২০ দিন সময় লাগে। মেরামতে ৩ হতে ৪ দিন সময় লাগে। এখন ইউকিলিকটাস গাছের কাঠ দিয়ে মেরামত করা হচ্ছে।

এছাড়া আলকাতরা, বার্নিশসহ নানাবিধ উপকরণ প্রয়োজন হয়। নাব্য সংকটে নৌকার ব্যবহার অনেকটা কমে গেছে। আজ থেকে ২০ বছর আগে নৌকার ব্যবহার ছিল ব্যাপক।

চরবাসীর জীবন যাত্রায় নৌকা একটি নিত্য প্রয়োজনীয় উপকরণ। তাই প্রতিবছর বন্যা আসার আগে নৌকা চরবাসীর একটি গুরুত্বপূর্ণ রুটিন কাজ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *