ভ্যাপসা গরমে চরম ভোগান্তিতে পড়েছে সাধারণ মানুষ

নিউজ ডেস্কঃ

দুর্বল মৌসুমি বায়ুর প্রভাব আর ভাদ্রের ভ্যাপসা গরমে চরম ভোগান্তিতে পড়েছে সাধারণ মানুষ। গত কয়েকদিনের তুলনায় আজকের তাপমাত্রাও ছিল বেশি। ভারী বৃষ্টি না হলে আগামী কয়েকদিন এমনই ভ্যাপসা গরম থাকতে পারে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদফতর।

শনিবার (৫ সেপ্টেম্বর) দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা যশোরে ৩৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়েছে। এছাড়া ঢাকায় আজ তাপমাত্রা ৩৫ দশমিক ৮, যা গত সপ্তাহে ছিল গড়ে ৩৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। একইভাবে ময়মনসিংহে আজ ৩৪ দশমিক ৬, যা গত সপ্তাহে ছিল ৩১ , চট্টগ্রামে আজ ৩৩ দশমিক ৬, গত সপ্তাহে ছিল ৩২, সিলেটে আজ ৩৪, গত সপ্তাহে যা ছিল ৩১ , রাজশাহীতে আজ ৩৫ দশমিক ৬, গত সপ্তাহে যা ছিল ৩৪, রংপুরে আজ ৩৫, গত সপ্তাহে যা ছিল ৩৪, খুলনায়ও আজ ৩৫, গত সপ্তাহে যা ছিল ৩৪ এবং বরিশালে ৩৫ দশমিক ৩, যা গত সপ্তাহে ছিল ৩৪ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সে হিসাবে গত সপ্তাহের তুলনায় গড়ে ১ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা বেড়েছে। এরমধ্যে আবার ঝড়ো হাওয়ার কারণে নদী বন্দরগুলোতে ১ নম্বর সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

আবহাওয়াবিদ আব্দুল মান্নান বলেন, আরও মাসখানেক এই ধরনের আবহাওয়া থাকবে। কখনও মৌসুমি বায়ুর কারণে বৃষ্টি হবে আবার কখনও ভ্যাপসা গরম অনুভূত হবে। আজ দেশের অধিকাংশ এলাকার আকাশ পরিষ্কার।  তাই গরম বেশি অনুভূত হচ্ছে। ভারী বৃষ্টি না হলে তাপমাত্রা কমবে না। আরও কয়েকদিন এই গরম থাকতে পারে।

গত ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ বৃষ্টি হয়েছে সিলেট, খুলনা আর নেত্রকোনায়। সিলেটে ৩৪, নেত্রকোনায় ২ আর খুলনায় সামান্য বৃষ্টি রেকর্ড করা হয়েছে। আবহাওয়া অধিদফতর জানায়, মৌসুমি বায়ুর অক্ষ উত্তর প্রদেশ,  বিহার, রাজস্থান, পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশের মধ্যাঞ্চল হয়ে আসাম পর্যন্ত বিস্তৃত। এর একটি বর্ধিতাংশ উত্তর বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত বিস্তৃত। মৌসুমি বায়ু বাংলাদেশের ওপর কম  সক্রিয় এবং উত্তর বঙ্গোপসাগরে দুর্বল অবস্থায় বিরাজ করছে। এর প্রভাবে রংপুর, সিলেট,  ময়মনসিংহ, ঢাকা,   রাজশাহী ও  চট্টগ্রাম বিভাগের দু’এক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়াসহ হালকা বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। এছাড়া দেশের অন্যান্য অঞ্চলের আবহাওয়া প্রধানত শুষ্ক থাকতে পারে।

এদিকে আবহাওয়ার এক সতর্কবার্তায় আজ রাত ১টা পর্যন্ত নদী বন্দরে পূর্বাভাসে বলা হয়,রংপুর, রাজশাহী,  পাবনা, বগুড়া, টাঙ্গাইল,  ময়মনসিংহ,  ঢাকা, ফরিদপুর, মাদারীপুর ও কুমিল্লা অঞ্চল গুলোর উপর দিয়ে দক্ষিণ ও দক্ষিণ পূর্ব দিকে থেকে ঘণ্টায় ৪৫ থেকে ৬০ কিলোমিটার বেগে বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে।  এসব এলাকার নদীবন্দরকে ১ নম্বর সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *