মানব সেবায় ছুটে চলছেন সাতুরিয়া ইউপি চেয়ারম্যান সৈয়দ মাইনুল হায়দার নিপু 

ঝালকাঠি জেলার রাজাপুর উপজেলার ১নং সাতুরিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সৈয়দ মাইনুল হায়দার নিপু’র সেবায় সন্তুষ্ট ইউনিয়নবাসী। ইউনিয়ন পরিষদের দায়িত্ব গ্রহণের এক বছরেই ইউনিয়ন বাসীর মনে জায়গা করে নিয়েছেন সৈয়দ মাইনুল হায়দার নিপু। অসহায়, দিনমজুর মানুষদের কল্যানে কাজ করায় তিনি এখন ইউনিয়নে সকলের আস্থার প্রতীক হয়ে উঠেছেন। ইউনিয়ন পরিষদের সেবা গুলো  সঠিকভাবে পাওয়ায় ইউনিয়নবাসী চেয়ারম্যানকে নিয়ে গর্ববোধ করছে। লোভ লালসার উর্ধে থেকে তিনি সকলকে সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। চেয়ারম্যান সার্টিফিকেট, জন্ম নিবন্ধন, মৃত্যু সার্টিফিকেট, ওয়ারিশ সার্টিফিকেট, প্রত্যায়নপত্র, ব্যবসায়ীক ট্রেডলাইসেন্স সঠিক ভাবে পাওয়ায় প্রতিনিয়ত সাধারন মানুষ ইউনিয়ন পরিষদ মুখী হয়ে উঠছেন। কোন প্রকার হয়রানি ছাড়াই যেন ইউনিয়ন পরিষদে আগত সেবা প্রত্যাশিরা সেবা নিতে পারে, সে দিকে খেয়াল রেখেই তিনি কাজ করছেন।
জানা যায়, সৈয়দ মাইনুল হায়দার নিপু সাতুরিয়া ইউনিয়ন পরিষদের অভিভাবকের দায়িত্ব নেওয়ার পর ইউনিয়ন থেকে মাদক, সন্ত্রাস, জঙ্গীবাদ, বাল্য বিয়ে রোধ করা ও শিক্ষারহার বৃদ্ধিসহ বিভিন্ন উন্নয়ন মূলক কাজ করছেন তিনি। ইউনিয়নের অভ্যন্তরে সকলের গতিবিধি নজরদারীতে রাখতে, অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে, অপরাধীদের সনাক্ত করতে এবং আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে ইউনিয়নের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে এখন পযর্ন্ত ৩৭টি সিসি ক্যামেরা স্থাপন করেছেন। অবিভক্ত বাংলার মুখ্যমন্ত্রী ও বাংলার বাঘ খ্যাত শেরে-ই বাংলা একে ফজলুল হক প্রতিষ্ঠিত সাতুরিয়া এমএম উচ্চ বিদ্যালয়ের দিঘীর ঘাটলা নির্মাণ করেন। ইউনিয়ন বাসীকে চোর ডাকাতের কবল থেকে বাঁচাতে চৌকিদার ও গ্রামবাসীকে সাথে নিয়ে নিজে উপস্থিত থেকে রাতে পাহাড়ায় ব্যবস্থা করে আসছেন। তার প্রচার প্রচারনার মাধ্যমে ইউনিয়ন ভিত্তিক করোনা টিকা দেওয়ার কর্মসূচি  এক দিনে ১৫০০ জনকে টিকা দিয়ে উপজেলার মধ্যে সাতুরিয়া ইউনিয়ন প্রথম হয়।
স্বাধীনতার স্থপতি, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সোনার বাংলা গড়ার স্বপ্ন নিয়েই  তিনি কাজ করছেন। তার নির্বাচনী ইশতেহার শতভাগ বাস্তবায়নের লক্ষ্য নিইে তিনি মানুষকে সেবা দিচ্ছেন। সাতুরিয়া ইউনিয়নকে একটি মডেল ইউনিয়ন গড়ার স্বপ্ন নিয়েই সৈয়দ মাইনুল হায়দার নিপু কাজ করছে। তার কঠোর তত্ত্বাবধায়নে সুনামের সাথেই দিন দিন সাতুরিয়া  ইউনিয়ন এগিয়ে যাচ্ছে। সৈয়দ মাইনুল হায়দার নিপু ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের দায়িত্বে যোগদানের পর থেকেই সর্বস্তরের মানুষ পরিষদ মুখী হয়ে উঠেছেন।  ইউনিয়নের বিভিন্ন কাঁচা রাস্তা পাকা করন, নতুন নতুন রাস্তা নির্মান, আর্সিনিক মুক্ত টিউবওয়েল, স্যানেটারীসহ  বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে কাজ করে জনসাধারনের বিশ্বস্ত  হয়ে উঠেছেন তিনি।
সৈয়দ মাইনুল হায়দার নিপু এক জন কৃষি বান্ধব চেয়ারম্যান। কৃষি কাজের জন্য কৃষকদের কৃষি উপকরণ বিতরণ করা সহ কৃষকের চাষাবাদের ফসল যাতে নষ্ট না হয় সেজন্য কৃষকদের সাথে সব সময় যোগাযোগ ও আলোচনা করে থাকেন, চাষাবাদের  সময় জমিতে গরু ছাগল না চড়ানোর জন্য মাইকিং এর ব্যবস্থা করে থাকেন। অসহায় গরীর মানুষদের কথা চিন্তা করে  সম্প্রতি সময়ে ইউনিয়ন পরিষদে এক সভায় উপস্থিত ঊর্ধ্বতন  কর্তৃপক্ষের নিকট জানান প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ প্রকল্প অসহায় দুঃখী ও গরীব মানুষের মুখে হাসি এনে দিয়েছে। এ প্রকেল্পর আওতায় গৃহহীনরা তাদের বসতভিটার ঠিকানা পেয়েছেন। প্রকল্পটি গৃহহীন মানুষের জন্য শুধু বাসস্থানই নয়, পানি ও স্যানিটেশন সুবিধাও দিয়েছেন কিন্তু ইউনিয়নে কোন পাবলিক কবরস্থান নেই, সাতুরিয়া ইউনিয়নে একটি পাবলিক কবরস্থান প্রয়োজন তাই একটি পাবলিক কবরস্থান করার জন্য অনুরোধ জানান। ইউনিয়নে একটি পাবলিক কবরস্থান হলে আশ্রয়ণ প্রকল্পের অসহায় দুঃখী ও গরীব মানুষরাসহ ইউনিয়নবাসী অনেক উপকৃত হবে বলে জানান।
সৈয়দ মাইনুল হায়দার নিপু সাতুরিয়া ইউনিয়ন পরিষদের দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে বর্তমান সফল সরকারের জাতীয় প্রতিটি দিবস যথাযত ভাবে পালন করে আসছেন। সরকারের উন্নয়নের চিত্র প্রচার-প্রচারনার মাধ্যেমে সব সময় জনসমুখে তুলে ধরে আসছেন, এবং সাতুরিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগসহ অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনকে শক্তিশালী ও ঐক্যবদ্ধ রাখার জন্য সব সময় দলীয় লোক জনের সাথে থেকে কাজ করে যাচ্ছেন। সৈয়দ মাইনুল হায়দার নিপু  ছাত্র জীবন থেকেই জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শকে বুকে লালন করে আওয়ামী লীগের রাজনীতি করে আসছেন। ছাত্র রাজনীতিতেই তিনি ইউনিয়নের সর্বস্তরের মানুষের কাছে একজন জনপ্রীয় ব্যক্তি হিসেবে পরিচিতি লাভ করেন। বর্তমানে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি নৌকার মান রাখতে নিরলস ভাবে কাজ করছেন।
সৈয়দ মাইনুল হায়দার নিপু বলেন, আমি জনগনের ভোটে নির্বাচিত হয়েছি। তাই সব সময় জনগনের সেবা দিতেই আমি প্রতিশ্রুতিবদ্ধ  রয়েছি। কোন মানুষ যাতে আমার পরিষদে এসে হয়রানি না হয়, সে লক্ষ্য নিয়েই আমি কাজ করছি। দল-মত নির্বিশেষে সমানভাবে ওয়ার্ড ভিত্তিক ইউপি সদস্য ও স্থানীয়দের নিয়ে আলোচনা করে বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা, পঙ্গু ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতা, ভিজিএফ ও টিসিবি কার্ড সঠিক ভাবে বিতরন করে আসছি। কোন মানুষ যাতে হয়রানি না হয়, সে বিষয়টি সব সময় আমি গুরুত্ব দিচ্ছি। যতদিন ইউনিয়ন পরিষদের অভিভাবকের দায়িত্বে থাকবো সততা ও নিষ্ঠার সাথে সব সময় কাজ করবো ইনশাআল্লাহ।

গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধি নিয়ে যা জানালেন জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী

বিদ্যুৎ ও জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধির কারণে এখন গভীর সমুদ্রে খননের অফার আসছে। এটি বাংলাদেশের জন্য আশীর্বাদ।...

Read more

সর্বশেষ

ADVERTISEMENT

© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত


সম্পাদক ও প্রকাশক : মাে:শফিকুল ইসলাম
সহ-সম্পাদক : এডভােকেট-মোঃ আবু জাফর সিকদার
প্রধান প্রতিবেদক: মোঃ জাকির সিকদার

কার্যালয় : হোল্ডিং নং ২৮৪, ভাদাইল, আশুলিয়া, সাভার, ঢাকা-১৩৪৯

যোগাযোগ: +৮৮০ ১৯১ ১৬৩ ০৮১০
ই-মেইল : [email protected]

দৈনিক আমাদের খবর বাংলাদেশের একটি বাংলা ভাষার অনলাইন সংবাদ মাধ্যম। ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮ থেকে দৈনিক আমাদের খবর, অনলাইন নিউজ পোর্টালটি সব ধরনের খবর প্রকাশ করে আসছে। বাংলাদেশের সবচেয়ে প্রচারিত অনলাইন সংবাদ মাধ্যমগুলির মধ্যে এটি একটি।

ADVERTISEMENT
x