সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় গৃহবধুকে শ্লীলতাহানির চেষ্টা, বিয়ের দাবিতে অনশনে গৃহবধু

সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় বিয়ের দাবিতে রুবেল উদ্দীনের বাড়িতে অনশন অবস্থানে রয়েছেন গৃহবধু চাম্পা খাতুন। ঘটনাটি ঘটেছে উল্লাপাড়া উপজেলার বড়হর ইউনিয়নের পাগলা দক্ষিণপাড়া গ্রামে। রোববার সকালে চাম্পা রুবেলের বাড়িতে আসেন।

স্থানীয়রা জানান, প্রায় ৪ বছর আগে পার্শ্ববর্তী গুয়াগাঁতী গ্রামের আনোয়ার হোসেনের ছেলে সুজন আহম্মেদের সাথে পারিবারিক ভাবে বিয়ে হয় চাম্পা খাতুনের। তাদের একটি ২ বছরের কন্যা সন্তান রয়েছে। গৃহবধু চাম্পা খাতুন গণমাধ্যম কর্মীদেরকে জানান, বেশ কিছুদিন ধরে পাগলা দক্ষিণ পাড়া গ্রামের আব্দুল মজিদের ছেলে রুবেল উদ্দীন তাকে বিভিন্ন ভাবে কু-প্রস্তাব দিয়ে আসছিলো। তার কু-প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় তাকে মোবাইল ফোনে বিভিন্ন হুমকি প্রদান ও রাস্তাঘাটে উত্ত্যক্ত করতেন বলে অভিযোগ করেন ওই গৃহবধু। তার জের ধরে রোববার সকাল ১০ টার দিকে গৃহবধুর বাড়িতে তার পরিবারের কোন সদস্য না থাকায়, সুযোগ বুঝে বখাটে রুবেল ওই গৃহবধুর ঘরে প্রবেশ করে দরজার ছিটকালি আটকে দিয়ে তাকে শ্লীতাহানির চেষ্টা করে। গৃহবধুর আত্মচিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে এসে বখাটেসহ গৃহবধুকে ঘরে আটকে রাবশু

এই ঘটনার জানাজানি হলে বখাটে রুবেলের বন্ধু পাগলা দক্ষিণপাড়া গ্রামের হাসান, জাহিদ, রিপন, নুর হোসেন ও রুবেলের চাচা মান্নান খা সহ প্রায় ২০/৩০ জন্য ব্যক্তি লাঠিসোঠা নিয়ে ওই গৃহবধুর বাড়িতে আক্রমন করে গৃহবধুর বাড়ির লোকজনকে মারফিট করে এবং ঘরের আলমারি ভেঙ্গে তার ঘরে থাকা এক ভরি স্বনের গহনা ও নগদ ২ লাখ টাকা লুটে নিয়ে বখাটে রুবেলকে ঘর থেকে বের করে নিয়ে যায় বলে অভিযোগ করেন গৃহবধুর শ্বশুর আনোয়ার হোসেন। এই ঘটনায় ওই গৃহবধুকে চরিত্রহীন বলে অপবাদ দেয় তার শ্বশুর বাড়ির লোকজন। সেই অপবাদ সইতে না পেরে ওই গৃহবধু বখাটে রুবেল উদ্দীনের বাড়িতে বিয়ের দাবিতে ঘটনার দিন বেলা ১২ টা থেকে অনশন করছে। গৃহবধু আরো জানান, রুবেলের এমন কর্মকান্ডে শ্বশুর বাড়ির লোকজন তাকে বের করে দিয়েছে। এই কারণে আমি রুবেলের বাড়িতে বিয়ের দাবিতে অনশন করছি। রুবেল আমাকে বিয়ে না করলে আমি আত্মহননের পথ বেছে নিবো। এ ঘটনায় বিভিন্ন মহল মোটা অংকের টাকা নিয়ে ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করছে বলে জানান এলাকাবাসী। তবে বখাটে রুবেলের পরিবারের সবাই পলাতক রয়েছে। মুঠোফোনে তাদের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করলেও কাউকে পাওয়া যায়নি।

এ বিষয়ে বড়হর ইউপি চেয়ারম্যান জহুরুল ইসলাম নান্নুর সঙ্গে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, এ বিষয়ে আমার কিছু জানা নেই। তবে এ বিষয়ে আমি অবহিত হলে অবশ্যই ব্যবস্থা নিব।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *