আশুলিয়ার জননী মটর পার্টস মার্কেট দোকানিদের মানবেতর জীবন সরকারি সহায়তা কামনা

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

করোনা মহামারিতে সারা বিশ্বের অর্থনৈতিক মন্দার পাশাপাশি মানুষের মধ‍্য যেমন ভীতির সৃষ্টি হয়েছে তেমনি করে আমাদের দেশের সকল শ্রেনী পেশার মানুষের মানসিক কর্মক্ষমতার উপর প্রভাব পড়তে শুরু করেছেন। দীর্ঘ সময় করোনা মোকাবেলা করতে সবাইকে লকডাউনে ঘরে থাকতে হচ্ছে। সরকারের পক্ষ থেকে ঘরে থাকার নির্দেশনা থাকা সত্বেও মানুষ জীবন জীবিকার তাগিদে ঘর থেকে বাহিরে আসতে বধ‍্য হচ্ছেন বলে জানান স্বল্প আয়ের মানুষেরা।

তারা বলছে আসলে করোনা ভাইরাস একটি ভয়ংকর মহামারি আমরাও বুঝি আমাদের সকলের সচেতন হতে হবে এবং অন‍্যদেরও সচেতন করতে হবে পাশাপাশি সরকারের দেওয়া স্বাস্থ্যবিধি সামাজিক নিরাপদ দূরত্বও মেনে চলতে চেষ্টা করছি কিন্তু আমাদের বেকারত্ব সেই করোনার ভয়কে দূরে ঠেলে দিয়েছে। তবে লকডাউন উপেক্ষা করে বাহিরে আসা দিনমজুর খেটে খাওয়া মানুষের সংখ্যা তুলনামূলকভাবে বেশি এবং এদের মধ‍্য স্বল্প পুঁজির এক শ্রেনীর ব‍্যবসায়ীরাও রয়েছে।যেমন করোনায় একটানা লকডাউনের কারনে আশুলিয়ার বাইপাইলে জননী মটর পার্টস মার্কেটের ব‍্যবসায়ীরা মানবেতর জীবন যাপন করছে বলে অনেক ব‍্যবসায়ীরা আক্ষেপ করেন।

সোমবার ১৮মে আশুলিয়ার বাইপাইল জননী মটর পার্টস মার্কেট ব‍্যবসায়ীরা বলেন, আমাদের মার্কেটের সকল মটর পার্টস দোকানিরা অর্থাৎ ব‍্যবসায়ীরা করোনার মহামারিতে সংকটপন্ন মুহূর্তে মানবেতর জীবনযাপন করছি। ব‍্যবসায়ীরা সকলেই একই অভিমত ব‍্যক্ত করেন এবং ব‍্যবসায়ী সমিতির পক্ষথেকে শামীমা মটর পার্টসের মালিক মো.সামছুদ্দিন মিয়া বলেন, দীর্ঘ সময় লকডাউন চলার কারনে আমাদের জননী মটর পার্টস মার্কেটের সকল ব‍্যবসায়ীদের মঝে হতাশা নেমে আসছে এবং আমাদের কারো কোন বেচাকেনা নেই দীর্ঘদিন যাবৎ যেহেতু আমাদের বেচাকেনাটা যানবাহন চলাচলের সাথে সম্পর্ক আর সেই যানবাহন এখন বন্ধ সেহূত বুঝেনি আমাদের ব‍্যবসার আবস্থাটা কি হতে পারে। তবে এরকম চলতে থাকলে অনেকেরই ব‍্যবসা লাটে উঠবে তাছাড়া ইতিমধ্যে অনেকেই পড়েছে নানাবিধ বিপাকে এবং নানা চাপের মধ্যে পড়ে দিশেহারা হয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছি। তবে দুঃখজনক যে এযাবৎ আমাদের খোঁজখবর সরকার ও নেতা চেয়ারম্যান কেউই নিতে আসেনি ও খবর জানার কোন প্রয়োজনও মনে করেননা।

রাইসা মটরস্ এর মালিক শেখ রুবেল জানান, আমাদের ব‍্যবসার আবস্থা খুবই করুন নেই কেনাবেচা একটানা লকডাউনে আমাদের জীবন এখন মরানাপন্ন হয়ে উঠেছে। এই মার্কেটের সবারই একই অবস্থা এখন আমরা চরম চাপের মধ্যে দিন কাটছে একদিকে দোকান ভাড়া বাসা ভাড়া কর্মচারিদের বেতন অন‍্যদিকে ফ‍্যামিলি খরচ ইত‍্যাদি মিলে আছি চরম বিপদে। আর এবারের ঈদের কথাতো মুখেও আনতে পারছিনা খেয়ে পরে কোন রকম জীবন বাচানোই মুশকিল হয়ে গিয়েছে। আমরা সবাই মানবেতর জীবন যাপন করছি আমাদের সকলের দিকে সরকার ও স্থানীয় চেয়ারম্যান নেতারা যেন মানবিক দিক বিবেচনা করে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেন এটাই আমাদের আবেদন।

মদিনা মটরস্ মালিক কাওছার মাহমুদ বলেন, অত্র মার্কেট দোকান মালিকদের কথা আর কি বলবো গাড়ী যতদিন বন্ধ থাকবে আমাদের জীবন জীবিকার চাকাও বন্ধ থাকবে এটাই স্বাভাবিক আর আমাদের ব‍্যবসায়ীদের আবস্থা পথে বসা ছাড়া কোন উপায় নাই। এটতো সরকারের দোষ দিয়েও লাভ নেই করোনা তো সরকার নিয়ে আসেনি আল্লাহ্ দিয়েছে আল্লাহ্ই রক্ষা করবেন। এভাবে ব‍্যবসা বন্ধ থাকলে আমাদের এই ক্ষুদ্র ব‍্যবসায়ীদের পথে বসতে হবে। বেচাকেনা বন্ধ থাকায় কর্মচারিদের বেতন দোকান বাসাভাড়া ফ‍্যামিলি খরচ ইত‍্যাদি চাপে সকলেই আমরা দিশেহারা হয়ে পড়েছি। এখন আমাদের সরকারি সহযোগিতা না পেলে আমরা সকলেই জীবন বাচানোই দায় হয়ে যাবে।তাই সরকার আমাদের দিকে একটু মানবিক বিবেচনা করলে আমরা দেশের এই দুর্যোগ মূহুর্তে সকলেই বেচে যাব। তাই সরকারি সহযোগিতা আমাদের একান্ত প্রয়োজন।

উক্ত মার্কেটের সকল ব‍্যবসায়ীদের আবেদন জননী মটর পার্টস মার্কেটে ১৮ থেকে ২০টি মটর পার্টস দোকান রয়েছে প্রত‍্যক ব‍্যবসায়ীর আবস্থায় নাজুক সকলেই এই করোনা মহামারিতে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে দোকান খোলা রাখলেও বেচাকেনা না থাকায় আমরা মানবতের জীবনযাপন করছি। এতেকরে আমরা সরকারের সহযোগিতা কামনা করছি।
এদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি করুন আবস্থায় রয়েছেঃ নুন মটরস্ মালিক মো.জাবের হোসাইন, এম আর মটরস্ মালিক মোস্তাফিজুর রহমান, রাইসা মটরস্ মালিক শেখ রুবেল, মদিনা মটরস্ মালিক কাওছার মাহমুদ, শামীমা পার্টস মালিক মো.সামছুদিন মিয়া, সায়মন এন্টারপ্রাইজ মালিক ইব্রাহিম মিয়া, বিসমিল্লাহ্ মটরস্ মালিক আলতাব হোসেন বাবু, তুহিন মটরস্ মালিক মো. আলমগীর হোসেন, বন্ধু মটরস্ মালিক মোহাম্মদ আলী, জেএস ওয়ার্কসপ মালিক মো.জাহিদ, মায়ের দোয়া ইলেকট্রনিকস্ মালিক মো.মনির হোসেন, ইসমাইল ওয়ার্কশপ মালিক মো. ইসমাইল হোসেন, শরিফ কার ডেকোরেশন মালিক শেখ সজীব হোসেন, মিন্টু মটরস্

মালিক মো. মিন্টু মিয়া। উক্ত মার্কেটের ব‍্যবসায়ীরা এখন সরকারি সহযোগিতার জন‍্য ত্রাণ ও দুর্যোগ ব‍্যবস্থাপনা প্রতিমন্ত্রী ডা.এনামুর রহমান ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ কামনা করছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *