সুপ্রিম কোর্ট বারে সভাপতি এ এম আমিন উদ্দিন সম্পাদক মো. রুহুল কুদ্দুস কাজল

আবু জাফর সিকদার

 

সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির (সুপ্রিম কোর্ট বার অ্যাসোসিয়েশন) ২০২০-২১ সেশনের নির্বাচনে সভাপতি এ এম আমিন উদ্দিন এবং সম্পাদক মো. রুহুল কুদ্দুস কাজল নির্বাচিত হয়েছেন। সভাপতি এ এম আমিন উদ্দিন আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী সমন্বয় পরিষদের (সাদা প্যানেল) প্রার্থী ছিলেন। সভাপতিসহ ছয়টি পদে জয় পেয়েছে সাদা প্যানেল।সভাপতি পদে অ্যাডভোকেট এএম আমিন উদ্দিন পেয়েছেন তিন হাজার ৩৭০ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন পেয়েছেন দুই হাজার ৪৫৭ ভোট। তিনি ৯১২ ভোট বেশি পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন।

অপরদিকে সম্পাদক ব্যারিস্টার মো. রুহুল কুদ্দুস কাজল বিএনপি-জামায়াত সমর্থক আইনজীবীদের জাতীয়তাবাদী ঐক্য প্যানেলের (নীল প্যানেল) প্রার্থী ছিলেন। নির্বাচনে ১৪ পদের মধ্যে সম্পাদকসহ আটটি পদে বিজয়ী হয়েছেন তারা।সম্পাদক পদে ব্যারিস্টার মো. রুহুল কুদ্দুস কাজল পেয়েছেন তিন হাজার ৭৬ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী অ্যাডভোকেট শাহ মুনজুরুল হক পেয়েছেন দুই হাজার ৮১১ ভোট।

শুক্রাবার (১৩ মার্চ) সকালে ফলাফল ঘোষণা করেন সুপ্রিম কোর্ট বারের প্রধান নির্বাচন কমিশনার সিনিয়র আইনজীবী এ এফ হাসান আরিফ।দেশের সর্বোচ্চ আদালত সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির (বার অ্যাসোসিয়েশন) ২০২০-২১ সেশনের নির্বাচনের দুই দিনব্যাপী ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে বৃহস্পতিবার (১২ মার্চ) বিকাল ৫টার দিকে। এরপর মধ্য রাত থেকে ভোট গণনা শুরু করে শুক্রাবার সকালে ফলাফল ঘোষণা করেন বারের প্রধান নির্বাচন কমিশনার সিনিয়র আইনজীবী এ এফ হাসান আরিফ।দুই দিনে সর্বমোট পাঁচ হাজার ৯৪০ আইনজীবী তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন।

বুধবার (১১ মার্চ) সকাল ১০টা ২০ মিনিটে ভোটগ্রহণ শুরু হয়ে শেষ হয় বিকেল ৫টায়। আর বৃহস্পতিবার (১২ মার্চ) সকালে ভোটগ্রহণ শুরু হয়ে শেষ হয় বিকেল ৫টায়। উভয় দিন দুপুরে এক ঘণ্টার বিরতি ছিল।সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির মোট ভোটার সাত হাজার ৭৮১ জন। এর মধ্যে বুধবার (১১ মার্চ) তিন হাজার ৩১ আইনজীবী ভোট দিয়েছেন। বৃহস্পতিবার দুই হাজার ৯০৯টি ভোট পড়েছে।

সুপ্রিম কোর্ট বারের তত্ত্বাবধায়ক নিমেশ চন্দ্র দাশ জাগো নিউজকে জানান, সাত হাজার ৭৮১ ভোটারের জন্য ৬০টি বুথ তৈরি করা হয়েছে। তবে, নারীদের জন্য পৃথক কোনো বুথ তৈরি করা হয়নি। ফলে সব ভোটাররা একই বুথে ভোট দিয়েছেন। এবারের নির্বাচনে ১৪ পদের বিপরীতে মোট প্রার্থী হয়েছিলেন ৩১ জন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *